ব্রেকিং:
Home » খেলা » এখনো আমি বিশ্বাস করতে পারছি না , লিটন এটা কী করল- আতহার আলী খান

এখনো আমি বিশ্বাস করতে পারছি না , লিটন এটা কী করল- আতহার আলী খান

চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে লঙ্কান পেসার সুরাঙ্গা লাকমালের ডেলিভারি ছেড়ে দিয়ে নিজের উইকেট উপড়ে যেতে দেখেন লিটন কুমার দাস। এতে প্রথম বলে ‘ডাক’ নিয়ে মাঠ ছাড়েন লিটন। আর গতকাল লঙ্কান স্পিনার রঙ্গনা হেরাথের এক ডেলিভারি অযথা মেরে উইকেট খোয়ান লিটন কুমার দাস। এতে অল্পের জন্য সেঞ্চুরিবঞ্চিত হন বাংলাদেশের এ উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান।

ব্যক্তিগত ৯৪ রানে অফ স্টাম্পের বাইরে হেরাথের দেয়া টসড-আপ ডেলিভারি ক্রিজ থেকে বেড়িয়ে ছক্কা হাঁকাতে যান লিটন কুমার দাস। আর শূন্যে তুলে দেয়া লিটনের ক্যাচ অসাধারণ দক্ষতায় মিডঅফ থেকে অনেকটা দৌড়ে এসে ডিপ মিডউইকেট অঞ্চলে তালুবন্দি করেন দিলরুয়ান পেরেরা।

চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে ম্যাচের চতুর্থ দিনের শেষ বলে উইকেট খোয়ান মুশফিকুর রহীম। বাংলাদেশের সংগ্রহ তখন ৮১/৩। আর গতকাল দিনের শুরু থেকেই ব্যাট হাতে লিটনকে দেখাচ্ছিল আত্মবিশ্বাসী। দারুণ সব শটে খেলে দলকে বিপদমুক্ত করার সঙ্গে নিজের সংগ্রহটাও নিয়ে যান তিন অঙ্কের কাছাকাছি। সেঞ্চুরি থেকে তখন তিনি ৬ রান দূরে। এ সময় ক্ষেপাটে শটে উইকেট বিসর্জন দিলেন তিনি। ধারাভাষ্যকার আতহার আলী খানও ভীষণ অবাক।

বাংলাদেশের সাবেক এ ক্রিকেটার আতহার আলী বলে ওঠেন ‘এখনো আমি বিশ্বাস করতে পারছি না! সে (লিটন) এটা কী করল!’ ঘরোয়া ক্রিকেটে নিয়মিতই রান পান লিটন কুমার দাস। জাতীয় ক্রিকেট লীগ (এনসিএল), বাংলাদেশ ক্রিকেট লীগ (বিসিএল) ঢাকা প্রিমিয়ার লীগে উজ্জ্বল পরিসংখ্যান তার।

বাংলাদেশের ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির এক মৌসুমে সর্বাধিক রানের রেকর্ডটিও লিটন কুমার দাসের। এতে তিনি ভাঙেন মিনহাজুল আবেদিন নান্নুর ১০১২ রানের রেকর্ডটি। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে তার ব্যাটিং গড় যেখানে পঞ্চাশ ছুঁইছুঁই (৪৮.৯০), টেস্টে তা ত্রিশের নিচে। জাতীয় দলে তার এক সতীর্থ একবার বলেছিলেন, ‘ঘরোয়া ক্রিকেটে লিটনের ব্যাটিং যখন দেখি, মনে হয় এত নিখুঁত মনকাড়া ব্যাটিং কীভাবে করতে পারে একজন খেলোয়াড়!’

এই চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিন বিকালে লঙ্কান পেসার লাকমলের অফ স্টাম্পের ডেলিভারি ছেড়ে দিয়ে বোল্ড হন লিটন কুমার দাস। আর গোল্ডেন ডাক নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে লিটনের ওপর চাপটা ছিল স্পষ্টই। কিন্তু লিটন এবার দেখালেন ভিন্ন চেহারা। ব্যাট হাতে ক্রিজে কাটালেন ২২৭ মিনিট। এতে লিটন মোকাবিলা করেন ১৮২ বল। ক্যারিয়ার সেরা ৯৪ রানের ইনিংসে লিটন হাঁকান ১১টি চার। লঙ্কান বাঁ-হাতি চায়নাম্রান বোলার লাকশান সান্দাকানকে চার হাঁকিয়ে ৯৭ বলে অর্ধশতক পূর্ণ করেন লিটন কুমার দাস।

মুমিনুল হকের বিদায়ের আগে চতুর্থ উইকেটে লিটন গড়েন ১৮০ রানের জুটি। টেস্টে বাংলাদেশের চতুর্থ উইকেট জুটিতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড এটি। আর বাংলাদেশের যেকোনো উইকেটে সর্বোচ্চ জুটির তালিকায় এর অবস্থান ১৩তম। চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের তৃতীয় উইকেটে সর্বোচ্চ ২৩৬ রানের জুটি গড়েন মুমিনুল ও মুশফিকুর রহীম।

২০১৫’র জুনে ফতুল্লায় ভারতের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক লিটন কুমার দাসের। ৭ ম্যাচের টেস্ট ক্যারিয়ারে লিটন কুমার দাসের এটি তৃতীয় অর্ধশতক। সর্বশেষ টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ব্লুমফন্টেইনে ম্যাচের দুই ইনিংসে লিটনের সংগ্রহ ছিল ৭০ ও ১৮।-মানবজমিন

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close