Home » খেলা » ছেলেকে কুরআনের হাফেজ বানাতে চাই : জাতীয় দলের ক্রিকেটার তাইজুল

ছেলেকে কুরআনের হাফেজ বানাতে চাই : জাতীয় দলের ক্রিকেটার তাইজুল

সদ্য পুত্রসন্তানের বাবা হয়েছেন ক্রিকেটার তাইজুল ইসলাম। প্রথম সন্তানের বাবা হওয়ার আনন্দের আত্মহারা জাতীয় দলের এই তারকা ক্রিকেটার। বাবা হিসেবে দায়িত্ব আরও বেড়ে গেলে জাতীয় দলের এই টেস্ট স্পেশালিস্ট বোলারের। যুগান্তর অনলাইনকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে নাটোরের এ ক্রিকেটার বলেন, ছেলেকে ক্রিকেটার হিসেবে গড়ে তোলার আগে কুরআনের হাফেজ বানাতে চাই।

যুগান্তর : আপনাকে অভিনন্দন, সন্তানের বাবা হলেন।
তাইজুল : (হাসি) ধন্যবাদ ভাই।

যুগান্তর : আপনার অনুভূতি?
তাইজুল : (হাসি) অনুভূতি তো আসলে ওইভাবে বলা যায় না। এটা আসলে ভাষায় প্রকাশ করার মতো না। আমার পরিবারের সবাই খুশি।
যুগান্তর : মা-ছেলে দুইজন ভালো আছে?

তাইজুল : হ্যাঁ, আল্লাহর রহমতে ভালো আছে।
যুগান্তর : এ জন্যই কি বিসিএলে খেলা হয়নি?

তাইজুল : হ্যাঁ, আগামী মাসে যাব। পরিবারকে এখন কিছু দিন সময় দিতে হবে।
যুগান্তর : দায়িত্ব আরো বেড়ে গেল?

তাইজুল : হ্যাঁ বলতে পারেন। আগের চেয়ে দায়িত্ব আরও বেড়ে গেল। তার চেয়েও বড় বিষয় হলো বাবা হিসেবে আমার কর্তব্য আমাকে পালন করতে হবে। আগের চেয়ে একটু বেশি সিরিয়াস হতে হবে।
যুগান্তর : সন্তানকে নিয়ে প্রত্যেক বাবারই স্বপ্ন থাকে। ক্রিকেটার হিসেবে ছেলেকে নিয়ে আপনার স্বপ্ন কি?

তাইজুল : এখন ওইভাবে চিন্তা করিনি। ক্রিকেটার পরের ব্যাপার। আমি চাইছি যে হয়তোবা হাফেজ যদি করা যায়, আল্লাহ যদি রহম করেন। কুরআনের হাফেজ করার ইচ্ছা আছে আরকি। এটা আমার ইচ্ছা আরকি।
যুগান্তর : যুগান্তর অনলাইনের পক্ষ থেকে আপনাকে ধন্যবাদ। ছেলের জন্য শুভকামনা রইল।
তাইজুল : আমার ছেলের জন্য দোয়া করবেন। সবার কাছে দোয়া চাই। আমার ছেলে যেন মানুষের মতো মানুষ হতে পারে।

বাবা হলেন ক্রিকেটার তাইজুল ইসলাম

আসন্ন ত্রিদেশীয় সিরিজের জন্য প্রাথমিক স্কোয়াডে থাকলেও মূল দলে জায়গা পাননি তাইজুল ইসলাম। তাতে কী? এরই মধ্যে তিনি পেয়েছেন সুখবর। তার ঘর আলোকিত হয়ে এসেছে ফুটফুটে পুত্র সন্তান। বৃহস্পতিবার রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে তার স্ত্রী পুত্র সন্তানের জন্ম দেন। রাতেই ভক্তদের সঙ্গে সুখের মুহূর্তটি ভাগ করতে পুত্রের ছবি ফেসবুকে আপলোড করেন তাইজুল।

ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে তোলা কয়েকটি ছবি ফেসবুকে আপলোড দিয়ে ছবির ক্যাপশনে তিনি লিখেছেন, আলহামদুলিল্লাহ। আমার ছেলের জন্য সবাই দোয়া করবেন।

বাংলাদেশ জাতীয় দলের এই স্পিনার তার টেস্ট ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত ১৬ ম্যাচে অংশ নিয়ে ৫৪টি উইকেট পকেটে পুরেছেন। সেরা বোলিং ফিগার ৮/৩৯। আর ওয়ানডেতে চার ম্যাচ খেলে নিয়েছেন পাঁচটি উইকেট। সেরা বোলিং ফিগার ৪/১১।

প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ৪৫টি ম্যাচ খেলে ১৮৬টি উইকেট নিয়েছেন তিনি। সেরা বোলিং ফিগার ৮/৩৯। লিস্ট এ ক্রিকেটে ম্যাচ খেলেছেন ৭২টি। উইকেট নিয়েছেন ১০১টি। সেরা বোলিং ফিগার ৬/১৯। আর ঘরোয়া টি-টোয়েন্টিতে ৫৩টি ম্যাচ খেলে নিয়েছেন ৪৯টি উইকেট। সেরা বোলিং ফিগার ৩/১৮।
বিপিএলের পঞ্চম আসরে সিলেট সিক্সার্সের হয়ে খেলেছিলেন তাইজুল ইসলাম। সিলেটের হয়ে ৮ ম্যাচ খেলে ৫ উইকেট লাভ করেন তিনি। সেরা বোলিং ফিগার ৩/১৯।

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close