Home » এক্সক্লুসিভ » প্রধানমন্ত্রীকে শিপন কুমার বসুর থ্রেড ‘আপনার সময় শেষ, গেম ওভার’

প্রধানমন্ত্রীকে শিপন কুমার বসুর থ্রেড ‘আপনার সময় শেষ, গেম ওভার’

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার সময় শেষ, আপনার দিন হয়তো ফুরালো, সময় হলো ইতিহাসের আস্তা কুড়ে নিক্ষিপ্ত হবার। কথায় আছে, পাপ বাপকেও ছাড়েনা। আপনার পাপের কলশি ভরে গেছে সেটা বোধহয় আপনি অনুধাবনও করতে পারছেন না!’

এভাবেই বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বলতে গেলে হুমকী দিলেন ‘হিন্দু স্ট্রাগল কমিটি বাংলাদেশ’-এর সভাপতি শিপন কুমার বসু।

গতকাল রোববার তিনি তার ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি স্ট্যাটাসের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কে এই হুমকী দেন।

এই শিপন কুমার বসুই হচ্ছে সেই শিপন কুমার যিনি গত বছর ইসরায়েলের লিকুদ পার্টির সদস্য মোসাদ চর মেন্দি এন সাফাদির সঙ্গে বিএনপির নেতা আসলাম চৌধুরীর আলোচিত বৈঠকটি করিয়ে দিয়েছিলেন বলে পত্রিকায় খবর বেরিয়েছিলো।

শিপন কুমার বসুর ফেসবুক স্ট্যাটাসটি দিগন্ত বার্তার পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো-

“মাননীয় (মাননীয় বলতে অবশ্য কুন্ঠা বোধ হয়) প্রধানমন্ত্রী, আপনার দিন হয়ত ফুরালো। সময় হলো ইতিহাসের আস্তা কুড়ে নিক্ষিপ্ত হবার। কথায় আছে, পাপ বাপকেও ছাড়েনা। আপনার পাপের কলশি ভরে গেছে সেটা বোধহয় আপনি অনুধাবনও করতে পারছেন না! হিটলার-মুসোলিনীর মতো ফ্যাসিস্ট স্বৈরাচারীর তুলনায় আপনি তো চুনো-পুটী, তারাই টিকতে পারেনি! তাহলে আপনার পরিণাম কত ভয়াবহ হবে বুঝে নিন।

মুসলিমলীগ থেকে জন্ম আওয়ামীলীগ এর, কোথায় সেই মুসলিমলীগ? আওয়ামীলীগ এর পরিণতিও তার ব্যতিক্রম হবে না।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা পূর্ব সময় হতে আপনার পিতার নীতি অনুসরণ করেই এদেশের সংখ্যালঘূ সম্প্রদায় কে নিশ্চিহ্ন করণ প্রজেক্ট চালিয়ে যাচ্ছেন এবং এরই ধারাবাহিকতায় আপনি ও আপনার লেলিয়ে দেওয়া বাহিনী দেশের ইতিহাসের প্রথম সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্বকারি প্রধান বিচারপতিকে বলপূর্বক ছুটি প্রদানসহ দেশ ত্যাগে বাধ্য করেছেন। দেশের বিচার বিভাগকে ধংসের দ্বারপ্রান্তে পৌছে দিয়েছেন। পিলখানা হত্যা কান্ডের মাধ্যমে দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনীর মেরুদণ্ড ভেঙে দিয়েছেন, শাপলা চত্তরে শত শত নিরীহ মুসলমানদের হত্যা করেছেন। আমার মাতৃভূমি বাংলাদেশকে গুম-খুন-হামলা-মামলায় অভয়ারণ্যে পরিণতি করেছে। আপনার ও আপনার দলীয় নেতাদের প্রত্যক্ষ মদদে প্রতিদিন শত শত সংখ্যালঘু পরিবার প্রাণ নিয়ে পালিয়ে বাচার চেষ্টা করছে। আপনি কি মনেকরেন এর জন্য আপনাকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে না! অবশ্যই আপনার প্রতিটি অন্যায়ের শাস্তি পেতে হবে, কোন ক্ষমা নাই। পরিশেষে বলতে চাই, আপনার সময় শেষ। খুব বেশীহলে নভেম্বর ২০১৭, গেম ওভার! GET READY TO GET PUNISHED.

উল্লেখ্য, ‘হিন্দু স্ট্রাগল কমিটি বাংলাদেশ’-এর সভাপতি এই শিপন কুমার বসু গত বছর ইসরায়েলের লিকুদ পার্টির সদস্য মেন্দি এন সাফাদির সঙ্গে বিএনপির নেতা আসলাম চৌধুরীর আলোচিত বৈঠকটি করিয়ে দেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন। তার স্বীকারোক্তিটি ১৯ মে ২০১৬ তারিখের প্রথম আলোতে প্রকাশিত হয়।

সাফাদি সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল ডিপ্লোমেসি অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনসের প্রধান মেন্দি এন সাফাদি। নয়াদিল্লিতে তাঁর সঙ্গে বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আসলাম চৌধুরীর বৈঠকের খবর ও ছবি প্রকাশিত হওয়ার পর গত বছরের ১৬ মে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়।

শিপন কুমারের ফেসবুকে গিয়ে দেখা গেছে, তিনি সংখ্যালঘু, বিশেষ করে হিন্দুদের নির্যাতন নিয়ে নানা সময়ে নানা ধরনের লেখা শেয়ার দিয়েছেন। এ ছাড়া ‘জেরুজালেম ইন মাই নেম’, ‘ইসরায়েল ইন মাই হার্ট’ এসব গ্রুপের নানা পোস্ট শেয়ার দিয়েছেন। তাঁর ফেসবুক প্রোফাইলে তিনি নিজেকে ‘ইন সার্চ অব রুটস’ নামের একটি সংগঠনের অ্যাসিস্ট্যান্ট ওয়ার্কিং প্রেসিডেন্ট হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন। এ সংগঠনটি সাফাদি সেন্টারের সঙ্গে কাজ করে।

কয়েকটি গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, শিপন বাংলাদেশে মোসাদের এজেন্ট। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে প্রথম আলোকে শিপন বলেন, ‘আমি যদি কারও এজেন্ট হয়ে থাকি, সেটি আমার প্রিয় দেশ বাংলাদেশের ও আমার হিন্দু সম্প্রদায়ের। আমি হিন্দুদের ওপর নিপীড়ন ও জমি দখলের বিরুদ্ধে কাজ করছি অনেক দিন ধরে। এর সূত্র ধরেই আমার সঙ্গে দুই বছর আগে মেন্দির যোগাযোগ হয়। কিন্তু ইসরায়েলের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ নেই।’ source: দিগন্তবার্তা

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close