ব্রেকিং:
Home » খেলা » ‘মামুর ব্যাটা’দের কপালে চিন্তার ভাঁজ !

‘মামুর ব্যাটা’দের কপালে চিন্তার ভাঁজ !

‘না করতে পারে ব্যাটিং, না জানে বোলিং; ফিল্ডিংটাও তো ঠিকঠাক পারে না! কেন যে মাঠে খেলতে আসে!’ এভাবে বলতে বলতে রাগে গজরাচ্ছিলেন রাজশাহী কিংসের এক সমর্থক!

ঘটনা কী? তার ক্ষোভ আসলে সামিত প্যাটেলের ওপর! ইংল্যান্ডের এই সাবেক অলরাউন্ডার রাজশাহীর হয়ে এমনই বাজে পারফরম্যান্স করছেন যে, বিপিএলে এ পর্যন্ত ব্যর্থদের তালিকা করতে গেলে বোধহয় শীর্ষেই থাকবে তার নাম!

পরিসংখ্যান দেখুন, প্যাটেল ৪ ম্যাচের ৪ ইনিংসে ব্যাট হাতে নেমে করেছেন ১০ রান, গড় ২.৫০ সর্বোচ্চ ৬! বোলিংয়ে অবশ্য ৩১.৫০ গড়ে ২ উইকেট নিয়েছেন। পাশাপাশি একটি ক্যাচ ধরলেও কয়টি ক্যাচ যে ছেড়েছেন, তার হিসাব নেই!

সর্বনিম্ন তিনজন বিদেশী খেলোয়াড় খেলানোর বাধ্যবাধকতার কারণেই হয়তো, লুক রাউট ও লেন্ডল সিমন্সের চোটের সুবাদে গতকাল ঢাকার বিপক্ষে প্যাটেলকে নামিয়েছিল রাজশাহী! কিন্তু আবারও তিনি হতাশ করলেন! অথচ এই প্যাটেল গত মাসে হংকং ওয়ার্ল্ড সিক্সেস টুর্ণামেন্টে বেশ ভালোই খেলে এসেছেন।

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) পয়েন্ট তালিকার পাঁচ নম্বরে আছে রাজশাহী কিংস। দলটি ৬ ম্যাচের মধ্যে ২টি জিতেছে এবং ৪টি হেরেছে। জয় দুটি এসেছে মুমিনুল হক ও জাকির হাসানের কৃতিত্বে। গ্রুপপর্বে যদিও তাদের হাতে আছে আরও ৬টি ম্যাচ; কিন্তু আগামীর পথটা বেশ কঠিনই দেখাচ্ছে।

অবশ্য রাজশাহীর হয়ে শুধু প্যাটেল একা ননন, পাশাপাশি আরও কয়েকজনও দলকে ডুবিয়ে যাচ্ছেন নিয়মিত! জিম্বাবুয়ের ব্যাটসম্যান ম্যালকম ওয়ালার ২ ম্যাচে নেমে রান করেছেন ৫। অথচ শুধু একটি বল করেই দিয়েছেন ৬!

পাকিস্তানের পেসার মোহাম্মদ সামি ৩ ম্যাচে নিয়েছেন শুধুই ১টা উইকেট! অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি ৩ ইনিংসে ব্যাট করে ৫৭ রান তুললেও ইনজুরির কারণে এখনো বলই হাতে নিতে পারেন নি!

অনেক আশা নিয়ে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের নিহাদুজ্জামানকে দলে নিয়ে ৩টি ম্যাচও খেলিয়েছে রাজশাহী। কিন্তু স্থানীয় এই তরুণ বাঁহাতি স্পিনার ৭ ওভারে ৪৮ রান দিয়ে কোনো উইকেটেরই দেখা পান নি।

এদিকে দলের আইকন খেলোয়াড় মুশফিকুর রহিমও ব্যাট হাতে মোটেই সুবিধা করতে পারছেন না!

সব মিলিয়ে রাজশাহীর সামনে অপেক্ষা করছে কঠিন পরীক্ষা। ব্যাটিংয়ে মুমিনুল হক ও রনি তালুকদার এবং বোলিংয়ে মেহেদি হাসান মিরাজ, কির্ক উইলিয়ামস, ফরহাদ রেজা ও জেমস ফ্যাঙ্কলিনই যা কিছুটা প্রতিরোধ গড়ছেন।

গতবার সাদামাঠা একটা দল নিয়েই রানার্সআপ হয়েছিল রাজশাহী। তারুণ্য নির্ভর দলটি ড্যারেন স্যামির নেতৃত্বে মাঠে আনন্দময়ী ক্রিকেট উপহার দিয়ে ফাইনালে উঠে শিরোপা না জিতলেও সবার মন কেড়ে নিয়েছিল। ফলে এবার প্রত্যাশার পরিধি বেশ বেড়েছে।

‘মামুর বেটারা টেনশন লিয়ো না, এবার জিয়ে লিবো’- টুর্ণামেন্ট শুরুর আগে এক ভিডিওবার্তায় এভাবেই রাজশাহীর আঞ্চলিক ভাষায় বলেছিলেন ক্যারিবীয় অলরাউন্ডার ও দলটির অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি।

কিন্তু এখন পর্যন্ত `মামুর ব্যাটা’দের টেনশন বাড়ছে!

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close