Home » রাজনীতি » ‘ম্যাডাম, আমরা কি মানুষ না ?’

‘ম্যাডাম, আমরা কি মানুষ না ?’

অসুস্থ, অযোগ্য এবং পলায়নপর নেতৃত্ব বদলের আহবান জানালেন বিএনপির তৃণমূলের নেতৃবৃন্দ।তারা বললেন ‘বিএনপির স্থায়ী কমিটির অর্ধেকেরও বেশি সদস্য হাঁটা চলার অযোগ্য। তাদের সরে যেতে হবে। এমন নেতৃত্ব আনতে হবে যারা দিনরাত দলের জন্য কাজ করতে পারে। নির্বাহী কমিটির বৈঠকে জেলা নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘আন্দোলন শুরুর আগেই বিশ্বাসঘাতকদের চিহ্নিত করুন, না হলে আবার বিপদে পড়তে হবে।’ অন্য একজন তৃণমূল নেতা বলছেন, ‘ রাস্তায় আন্দোলনের মুরোদ নেই, স্যুট টাই পরে গোল টেবিল আর আলোচনা সভা করেন। এসব সভা-সমিতি করে সরকারের পতন ঘটানো যাবে না।’রোববার লা মেরিডিয়ান হোটেলে বিএনপির কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় তৃণমূলের নেতৃত্ববৃন্দ এসব কথা বলেন।

 

দুপুরে মধ্যাহ্ন বিরতির পর তৃণমূলের বক্তব্য শোনা হয়। অধিকাংশ জেলা এবং নির্বাহী কমিটির সদস্যরা বর্তমান স্থায়ী কমিটির ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করেন। তারা বলেন,এই নেতৃত্ব দিয়ে আন্দোলন হবে না। একজন স্থানীয় নেতা বলেন,‘স্থায়ী কমিটির চারজন সদস্য নেই। বাকী থাকে ১৫ জন এর মধ্যে তিনজন অসুস্থ। চলাফেরাই করতে পারেননা। বাকীদের মধ্যে আবার কয়েকজন অন্দোলনে আগ্রহী নন।’

 

অন্য আরেকজন নেতা বলেন ‘মফস্বলে বসে অনেক খবরই পাই। বিএনপির কোন নেতা সরকারের কাছ থেকে ব্যবসা পাচ্ছেন, কার ব্যাংক লোন মওকুফ করা হচ্ছে, রাতে বিএনপির কোন নেতা সরকারের সাথে বৈঠক করছেন, ইত্যাদি সব খবরই আমরা পাই। ঐ নেতা বলেন,’২০১৪ সালেই আমরা সরকারের পতন ঘটাতে পারতাম,কিন্ত ঢাকায় নেতৃত্বের ব্যর্থতার জন্য আমরা পারি নাই।এবার তাই আমদের আগে থেকেই প্রস্তুতি নিতে হবে। আন্দোলন করলে রাস্তায় নামতে হবে।’

 

দক্ষিণাঞ্চলের একজন নেতা বলেন ‘আমাদের সামনে কোন দিক নির্দেশনা নেই। নেতারাও জানেন না কি হবে। আমরা বলছি সহায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচনে যাবো না। কিন্তু সহায়ক সরকারটা কি তাও জানি না। তিনি বলেন ‘একদিকে বলা হচ্ছে, নির্বাচনে যাবো না। অন্যদিকে কেউ কেউ এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যস্ত। এসব বিষয়গুলো আমাদের দেখতে হবে।’

 

উত্তরাঞ্চলের একজন নেতা বলেন,’নয় বছর বাড়ী ছাড়া। অনেক নেতাকর্মী খুন হয়েছে,গুম হয়েছে।অথচ আমাদের নেতারা হাওয়া খেয়ে বেড়াচ্ছেন’। বেগম জিয়ার উদ্দেশ্যে ঐ নেতা বলেন, ‘ম্যাডাম একটা কিছু করেন। হয় চলেন,ঘোষণা দিয়ে গৃহপালিত বিরোধী দল হই। অথবা আন্দোলন করে সরকারকে ফেলে দেই।’

 

একজন জেলা সভাপতি বলেন, ‘ম্যাডাম কেমন আছেন?’ উত্তরে বেগম জিয়া মৃদু হেঁসে মাথা নাড়েন। এরপর ঐ নেতা বলেন, ‘আপনাকে দুবছর পর দেখলাম। নেতা-কর্মীর যদি দেখা সাক্ষাৎ এভাবে হয় তাহলে কীভাবে আন্দোলন হবে।’ তিনি বলেন, ‘আপনার চাকর-বাকররা তো আমাদের মানুষই মনে করে না। তাঁদের ফোন করলে তাঁরা ব্যস্ততা দেখায়।ম্যাডাম আমরা কি মানুষ না?’

 

 

 

 


তবে অধিকাংশ নেতাই আন্দোলনের উপর জোর দেন।
বাংলা ইন্সাইসাইডার

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close