Home » বিশেষ সংবাদ » শিক্ষামন্ত্রী নাহিদকে যে পরামর্শ দিলেন শেখ হাসিনা

শিক্ষামন্ত্রী নাহিদকে যে পরামর্শ দিলেন শেখ হাসিনা

শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদকে শর্ষের মধ্যে থাকা ভুত তাড়ানোর পরামর্শ দিলেন প্রধানমন্ত্রী। তবে আশ্বস্ত করলেন, ‘এখন আপনার খারাপ সময় যাচ্ছে। ঠাণ্ডা মাথায় পরিস্থিতি সামলান। চোখ কান খোলা রাখেন আর কথা কম বলেন।’

রোববার সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলনে শিক্ষা বিষয়ক এক অনুষ্ঠানের ফাঁকে ফাঁকে শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আলাপচারিতায় প্রধানমন্ত্রী এসব পরামর্শ দেন। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই সহস্রাধিক কলেজ অধ্যক্ষের অংশগ্রহণে আয়োজিত শিক্ষা সমাবেশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত হলে শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ তাকে রিসিভ করেন। নেমেই প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ প্রশ্নপত্র ফাঁসে একটি সংঘবদ্ধ চক্র কাজ করছে। বিএনপি-জামাতের একটি গ্রুপ সরকারের জনপ্রিয়তা নষ্ট করতে এই নোংরা খেলায় নেমেছে।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা কয়েকজনকে চিহ্নিত করেছি। আপনার মন্ত্রনালয়ের লোকজনও জড়িত। সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলতেই এমনটা করা হচ্ছে।’ এরপর প্রধানমন্ত্রী তার আসনে বসতে বসতে শিক্ষামন্ত্রীকে বলেন, ‘শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে সমস্যা আছে। শর্ষের মধ্যেই তো ভুত। আগে এই ভুত তাড়াতে হবে।’ পুরো অনুষ্ঠানের ফাঁকে ফাঁকেই প্রধানমন্ত্রী বিপর্যস্ত শিক্ষামন্ত্রীকে নানা পরামর্শ দেন বলে শিক্ষামন্ত্রী নিজেই স্বীকার করেছেন। বলেছেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপদেশগুলো চলমান সংকটগুলো কাঁটাতে সাহায্য করবে।’


সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, প্রধানমন্ত্রী শিক্ষামন্ত্রীর প্রতি সহানুভূতির হাতই বাড়িয়ে দিয়েছেন। বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যর্থতার গ্লানিতে ডুবে থাকা শিক্ষামন্ত্রীকে বরং সাহস জুগিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘সবারই খারাপ সময় যায়। চেষ্টা করেন সমস্যাগুলো বিশ্লেষণ করতে।’ তবে বেতন ভাতা বৃদ্ধি নিয়ে বিভিন্ন গ্রুপের শিক্ষকদের চলমান আন্দোলনকে নাকচ করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী তাঁর আনুষ্ঠানিক বক্তৃতায়।

আর যাবার সময় প্রধানমন্ত্রী শিক্ষামন্ত্রীকে চোখ কান খুলে রাখার পরামর্শ দিলেন। গাড়ীতে উঠতে উঠতে বললেন ‘নির্বাচনের আগে ওরা নানা অপবাদ দেয়ার চেষ্টা করবে,গুজব ছড়াবে। এজন্য সাবধানে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।‘প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস আর সান্তনায় আপ্লুত শিক্ষামন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় দিয়ে নিজেই নিজের দু’ফোটা অশ্রু মুছলেন। আর পাশের সহকর্মীকে বললেন ‘ তার প্রেরণার জন্যই কাজ করে যাচ্ছি। আশা করি সফল হবো। তিনি যে সত্যিকারের নেতা তার প্রমাণ বহুবার পেয়েছি, আবার পেলাম।

monitorbd

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close