ব্রেকিং:
Home » জাতীয় » স্ত্রীর প্রেমিকের আজব প্রস্তাব! বৌ পালানোর দুঃখ কিছুটা কমল ‘হতভাগ্য’ স্বামীর

স্ত্রীর প্রেমিকের আজব প্রস্তাব! বৌ পালানোর দুঃখ কিছুটা কমল ‘হতভাগ্য’ স্বামীর

জানা গিয়েছে, সিদগোরার বাগানহাতু এলাকার বাসিন্দা রমেশ কুমারের সঙ্গে মাস দু’য়েক আগে পূর্ব সোনারির শোভা কুমারীর বিয়ে হয়েছিল।

বিয়ের মাত্র একমাসের মাথায় প্রেমিকের সঙ্গে পালিয়েছিলেন নববিবাহিতা স্ত্রী। স্বভাবতই রাগ, দুঃখ, অভিমানে ফুঁসছিলেন স্বামী। কিন্তু স্ত্রীর প্রেমিক যে এমন এক প্রস্তাব নিয়ে হাজির হবেন, তা বোধ হয় ভাবতেও পারেননি ওই ব্যক্তি!

সর্বভারতীয় একটি হিন্দি দৈনিকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে ঝাড়খণ্ডের জামশেদপুরে। প্রেমিকাকে ফিরে পেতে তাঁর স্বামীকে বিয়ের সমস্ত খরচ ‘ক্ষতিপূরণ’ হিসেবে দিতে চেয়েছেন এক প্রেমিক।

জানা গিয়েছে, সিদগোরার

বাগানহাতু এলাকার বাসিন্দা রমেশ কুমারের সঙ্গে মাস দু’য়েক আগে পূর্ব সোনারির শোভা কুমারীর বিয়ে হয়েছিল। বিয়ের এক মাসের মাথায় নিজের প্রেমিক মনোজের সঙ্গে পালিয়ে যান শোভা। সিদগোরা থানায় অভিযোগ জানান শোভার স্বামী রমেশ। শেষ পর্যন্ত গত বৃহস্পতিবার প্রেমিক মনোজের সঙ্গে থানায় হাজির হন শোভা। খবর পেয়ে স্বামী-স্ত্রী দু’পক্ষের লোকজনই থানায় পৌঁছয়। শুরু হয় জোর বচসা।

পুলিশ কোনওক্রমে মধ্যস্থতার চেষ্টা করে। শোভার দাবি, তিনি মনোজকেই ভালবাসেন। কিন্তু বাড়ির লোকেরা জোর করে রমেশের সঙ্গে তাঁর বিয়ে দিয়েছেন। প্রেমিকের সঙ্গেই তিনি থাকতে চান। পালিয়ে গিয়ে দু’জনে একসঙ্গে থাকছিলেনও। পাল্টা শোভার স্বামী দাবি করেন, বিয়েতে প্রায় আড়াই থেকে তিন লক্ষ টাকা খরচ করেছেন তিনি। তার উপরে, পালিয়ে যাওয়ার সময়ে সমস্ত সোনার গয়না নিয়ে চলে গিয়েছেন তাঁর স্ত্রী।

তখনই মোক্ষম প্রস্তাবটি দেন শোভার প্রেমিক মনোজ। প্রেমিকার স্বামীকে তিনি বলেন, বিয়েতে যা খরচ হয়েছে, পুরোটাই তিনি মিটিয়ে দেবেন। তার বদলে প্রেমিকা শোভাকে পাকাপাকিভাবে তাঁকে দিয়ে দিতে হবে।

স্ত্রী যে তাঁকে ভালবাসেন না, বুঝতে পারেন রমেশ। ফলে, জোর করে তাঁকে আটকে রেখে লাভ নেই। অগত্যা, স্ত্রীর প্রেমিকের প্রস্তাবেই রাজি হন তিনি। প্রায় এক ঘণ্টা থানায় হাঙ্গামা চলার পরে বিষয়টির মিটমাট হয়!-এবেলা

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close