Home » এক্সক্লুসিভ » হরতাল সহিংস হলে উপযুক্ত জবাব

হরতাল সহিংস হলে উপযুক্ত জবাব

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) জামায়াতের ডাকা হরতাল সহিংস রূপ নিলে উপযুক্ত জবাব দেওয়া হবে।
তিনি বলেন, ‘জামায়াতের হরতাল সহিংস রূপ নিলে জবাবও হবে সে রকম। উপযুক্ত জবাব দেওয়া হবে। তাদের সহিংসতার কোনো পজিটিভ রেজাল্ট (ইতিবাচক ফল) নেই।’
ওবায়দুল কাদের আজ বুধবার উত্তরায় মেট্রোরেলের কাজ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।
আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা হরতাল প্রতিরোধে মাঠে থাকবেন কি না, প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, কোনো প্রয়োজন নেই। সেই অবস্থা বিরোধীদের এখন নেই। সহিংসতা করলে উপযুক্ত জবাব তারা পাবে।
তিনি বলেন, সহিংসতা সৃষ্টি করে কোনো আন্দোলন সফল করা যায় না, সেটা জানুয়ারির নির্বাচনোত্তর পরিস্থিতিতে প্রমাণ হয়ে গেছে। বিএনপি এবং তার সহযোগীরা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন। সহিংস রাজনীতির কোনো পজিটিভ রেজাল্ট নেই।
আগামী ছয় মাসের মধ্যে মেট্রোরেল দৃশ্যমান হবে বলে জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, মেট্রোরেলের কাজের অগ্রগতি এখন পর্যন্ত ১০ থেকে ১২ ভাগ শেষ হয়েছে।
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের দেওয়া বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, তিনি হতাশ হয়ে চোখের জল ফেলছেন। তাঁর চেয়ারপারসন কবে আসবেন তা কেউ জানে না। তাই তিনি কখনো এটা কখনো সেটা বলে নেতা-কর্মীদের চাঙা রাখার চেষ্টা করছেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, হলি আর্টিজানের ঘটনা মেট্রোরেলের কাজ একটু পিছিয়ে দিয়েছে। কিন্তু জাইকার ফান্ডিং বন্ধ হয়নি। কাজ এখন পুরোদমে চলছে। কাজে কোনো গাফিলতি নেই। জাইকার পুরো টিম কাজ করে যাচ্ছে।
পদ্মাসেতুর সঙ্গে তুলনা করে তিনি বলেন, পিলারের ওপর স্প্যান বসানোর পর পদ্মাসেতু যেভাবে দৃশ্যমান মেট্রোরেলও আগামী ছয় মাসের মধ্যে একইভাবে দৃশ্যমান হবে। ২০১৯ সালে প্রথম পর্যায়ে আগারগাঁও পর্যন্ত এরপর ২০২০ সালে মতিঝিল বাংলাদেশ ব্যাংক পর্যন্ত শেষ হবে।

কয়েকটি দেশের কূটনীতিকদের সঙ্গে বিএনপির বৈঠক
বিএনপির কয়েকজন নেতা ঢাকায় নিযুক্ত কয়েকটি দেশের কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বুধবার বিকেলে রাজধানীর গুলশানের হোটেল লেক শোরে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক শে‌ষে বের হওয়ার সময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহ‌মদের কাছে সাংবাদিকেরা জানতে চান, হঠাৎ করে বৈঠকটি কী নিয়ে। জবাবে মওদুদ আহ‌মদ ব‌লেন, ‘এই যে দে‌শে ক্রাইসিস চল‌ছে, প্রধান বিচারপ‌তির ছু‌টি নি‌য়ে, ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে। একটা রায়‌কে কেন্দ্র ক‌রে এমন ক্রাইসিস। বিচার বিভাগকে সরকা‌রের ডিফেন্ড (রক্ষা) করার কথা, কিন্তু সরকারই বিচার‌ বিভাগ‌কে আক্রমণ কর‌ছে। দে‌শে তো বিচার‌ বিভা‌গের স্বাধীনতা ব‌লে আর কিছু থাকল না।’
বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, চীন, যুক্তরাজ্য, নরও‌য়ে, ডেনমার্ক, নেপাল, মালদ্বীপসহ কয়েকটি দেশের কূটনীতিকেরা উপস্থিত ছিলেন।

বিএনপির পক্ষে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহ‌মদ ও আবদুল মঈন খান, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য জয়নুল আবেদীন, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা‌ ওবা‌য়েদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক সম্পর্কে বিএনপির অন্য কোনো নেতা কথা বল‌তে রা‌জি হন‌নি।
Source:Prothom-alo

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close