ব্রেকিং:
Home » আন্তর্জাতিক » হিন্দু ছেলেকে বিয়ে, অন্তঃসত্ত্বা মুসলিম যুবতীকে পুড়িয়ে হত্যা!

হিন্দু ছেলেকে বিয়ে, অন্তঃসত্ত্বা মুসলিম যুবতীকে পুড়িয়ে হত্যা!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : হিন্দু ঘরের ছেলেকে ভালোবাসাই কাল হল। প্রেম করে হিন্দু যুবককে বিয়ে করায় ২১ বছরের অন্তঃসত্ত্বা যুবতীকে পুড়িয়ে মেরে ফেললো তার পরিবার। ভারতের কর্নাটকের বিজাপুর জেলার গুন্ডানাকালা এলাকার এই মর্মানিত্ক ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতার নাম বানু বেগম। গুরুতর আহত তার স্বামী সায়াবন্না শরনাপ্পা কোন্নুরও। এলাকার এক হিন্দু পরিবারের ছেলে সায়াবান্না। প্রতিবেশী বানুর সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিষয়টি জানাজানি হতে বেশি সময় লাগেনি। বানু ও সায়াবান্না, দু’জনের পরিবারের পক্ষ থেকে এই সম্পর্কে তীব্র অসন্তোষ জানানো হয়।

এমনকী, বানুকে নাবালিকা বলে দাবি করে পকসো আইনের ভিত্তিতে স্থানীয় পুলিশ স্টেশনে অভিযোগও দায়ের করেছিল তার পরিবার। কিন্তু সে মামলা অল্প সময়ের মধ্যেই খারিজ হয়ে যায়। পরে বানু ও সায়াবান্না গোয়ায় পালিয়ে গিয়ে বিয়েও করে ফেলেন। কিন্তু বানুর বাপেরবাড়ির লোকজন কিছুতেই মেনে নিতে পারেনি এই বিয়ে।

চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে কর্নাটকের মুন্ডেবিহাল এলাকার সাব-রেজিস্ট্রারের অফিসে গিয়ে রেজিস্ট্রিও করেন দু’জনে। জুন মাসের তিন তারিখ গ্রামে ফেরেন বানু ও সায়াবান্না। অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন তিনি। ভেবেছিলেন, সন্তানের আসার সুখবর শুনে বাড়ির লোকেরা হয়তো সব ভুলে মেনে নেবেন তাদের সম্পর্ক।

তবে, গ্রামে আসা মাত্রই সায়াবান্নার উপর হামলা করে বানুর পরিবার। কোনও মতে নিজেকে বাঁচিয়ে তালিকোটে পুলিশ স্টেশনে পৌঁছে অভিযোগ জানান ২৪ বছরের যুবক। বলেন বানুকে আটকে রাখা হয়েছে। ১০ থেকে ১৫ মিনিটের মধ্যে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। কিন্তু ততক্ষণে বানুকে নির্মমভাবে খুন করে তারই পরিবার। অন্তঃসত্ত্বা বধূকে প্রথমে কোপানো হয়েছে। তারপর তার গায়ে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

স্বামী সায়াবান্নার অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বানুর মা, তার বোন, বোনের স্বামী ও ভাইকে। ঘটনার পর থেকেই পলাতক বানুর আরও দুই বোন। এই ঘটনা সামনে আসতেই পুরো কর্ণাটক রাজ্যজুড়ে নিন্দার ঝড় উঠেছে।

 

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close