Home » ইসলাম (page 3)

ইসলাম

নেককার বান্দাদের জন্য জান্নাতের নেয়ামতের ঘোষণা

সুরা আল-হিজরে ৪৫-৪৮ নং আয়াতে আল্লাহ তাআলা মুমিন বান্দাদের পরকালীন জীবনের সফলতা ও সুখ-শান্তির কথা তুলে ধরে বলেন, ‘পক্ষান্তরে মুত্তাকি (আল্লাহ ভিরু) লোকেরা থাকবে বাগান ও ঝর্ণাধারা মধ্যে। এবং তাদেরকে বলা হবে তোমরা এগুলো শান্তি ও নিরাপত্তার সঙ্গে প্রবেশ কর। তাদের মনে যে সামান্য পরিমাণ মনোমালিন্য থাকবে তা আমি বের করে দেব। তারা পরস্পর ভাই-ভাইয়ে মিলিত হয়ে মুখোমুখি আসনে বসবে। ...

বাকীটুকু পড়ুন »

কসম করা প্রসঙ্গে মহানবী (সা.)-এর কড়া হুঁসিয়ারি

যারা এই ভুলগুলো করেছেন তাদের আজকেই আগের ভুলগুলোর জন্য তওবা করে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। আমাদের সমাজে অনেককেই দেখা যায় মায়ের কসম, বাবার কসম, কুরআন ছুয়ে কসম, মসজিদ ছুয়ে কসম, সন্তানের মাথায় হাত রেখে কসম, এছাড়াও অনেক ভাবে কসম করতে দেখা যায়। এ প্রসঙ্গে রাসুল (সা.) বলেনঃ ”যে বেক্তি আল্লাহ্ ব্যাতিত অন্যের নামে কসম করে সে শিরক করলো।” (হাদিসঃ ...

বাকীটুকু পড়ুন »

দুই খ্রিস্টান ধর্ম গুরু ড্যানিয়েল স্ট্রিচ ও ড. গ্যারি মিলারের ইসলাম গ্রহণের কাহিনী

সুইজারল্যান্ডে ইসলাম-বিদ্বেষী আন্দোলনের প্রধান নেতা সুইস রাজনীতিবিদ ড্যানিয়েল স্ট্রিচ নিজেই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। কিন্তু পশ্চিমা সরকারগুলো ইসলাম ও মুসলমানদের সম্পর্কে আতঙ্ক ছড়ানোর চেষ্টা করছে। তারা মুসলমানদেরকে পাশ্চাত্যের জন্য বিপজ্জনক বলে তুলে ধরছে। আর এই অজুহাত দেখিয়ে পশ্চিমা সমাজে মুসলমানদের ওপর আরোপ করা হয়েছে নানা সীমাবদ্ধতা। ইউরোপ- আমেরিকার ক্ষমতাসীন সরকার ও ইসলাম-বিদ্বেষী দল বা সংস্থাগুলো এভাবে মুসলমান ও ইসলামের ওপর ...

বাকীটুকু পড়ুন »

ঘুষ দিয়ে চাকরি নিলে কি সেই চাকরির বেতন হালাল হবে?

কর্মক্ষেত্রের অযোগ্য হয় এবং যথাযথভাবে দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয় তাহলে তার জন্য ঐ চাকরিতে থাকা বৈধ হবে না। ইসলামের পরিভাষায় ঘুষ দেওয়া-নেওয়া দুটোই হারাম। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) ঘুষদাতা ও গ্রহিতাকে অভিসম্পাত করেছেন। তাই ঘুষ দিয়ে চাকরি নেওয়া জায়েয হবে না। এতে একদিকে ঘুষ প্রদানের কবীরা গুনাহ হয়, অন্যদিকে ঘুষদাতা অযোগ্য হলে অন্য চাকরিপ্রার্থীর হক নষ্ট করারও গুনাহ ...

বাকীটুকু পড়ুন »

পৃথিবীর যে স্থানে কিয়ামত পর্যন্ত সূর্যের আলো পৌঁছাবে না

এই পৃথিবীর এমন একটি স্থান আছে যেখানে আল্লাহ তায়ালা শুধু মাত্র একবার সূর্যের আলো পৌঁছিয়েছিলেন। মহান আল্লাহ তায়ালা পৃথিবী সৃষ্টির করার পর বান্দারা যাতে সৃষ্টিকর্তার ক্ষমতা সম্পর্কে কিছু ধারণা করতে পারে সেই জন্যে পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে নানা নির্দশন রেখেছেন। এই পৃথিবীর এমন একটি স্থান আছে যেখানে আল্লাহ তায়ালা শুধু মাত্র একবার সূর্যের আলো পৌঁছিয়েছিলেন। এবং সেই জায়গায় কিয়ামতের আগ পর্যন্ত ...

বাকীটুকু পড়ুন »

ইসলামে পালিয়ে বিয়ে করা জায়েজ আছে কি জেনে নিন !

ইজাব বা প্রস্তাবনা: এটি মেয়ের অভিভাবক বা তার প্রতিনিধির পক্ষ থেকে পেশকৃত প্রস্তাবনামূলক বাক্য। ইসলামে বিয়ের কিছু রীতিনীতি : এক: বিয়ে সংঘটিত হওয়ার ক্ষেত্রে সমূহ প্রতিবন্ধকতা হতে বর-কনে উভয়ে মুক্ত হওয়া: যেমন- বর-কনে পরস্পর মোহরেম হওয়া; ঔরশগত কারণে হোক অথবা দুগ্ধপানের কারণে হোক। বর কাফের কিন্তু কনে মুসলিম হওয়া, ইত্যাদি। দুই: ইজাব বা প্রস্তাবনা: এটি মেয়ের অভিভাবক বা তার প্রতিনিধির ...

বাকীটুকু পড়ুন »

আল্লাহর বিধান পরিবর্তনকারীদের জন্য আফসোস!

শিক্ষিত ইয়াহুদিদের মধ্যে যারা নেতৃস্থানীয় ছিল, তাদের কাজ ছিল তাওরাতে তথ্য বিভ্রান্তি করা, নিজ থেকে বানিয়ে গ্রন্থ রচনা করে আল্লাহর বাণী বলে চালিয়ে দেয়া। যাতে করে তাওরাতে বর্ণিত আল্লাহ তাআলার সঠিক বিবরণের সঙ্গে কুরআনের মিল খুঁজে পাওয়া না যায়। কারণ, তাওরাতে বিশ্ননবী রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আগমনের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য উপাত্ত দেয়া ছিল। যে কারণে ইয়াহুদিদের ধর্মীয়গুরু তথা নেতৃস্থানীয়রা ...

বাকীটুকু পড়ুন »

সৃষ্টির প্রতি দায়িত্ব পালনের নির্দেশ

আল্লাহ তাআলা প্রত্যেক যুগেই দ্বীনের দাওয়াত দেয়ার জন্য নবি-রাসুল প্রেরণ করেছেন। সকল উম্মতের কাছ থেকে ওয়াদা নিয়েছেন যে, তাঁরা আল্লাহ ব্যতিত আর কারো ইবাদাত-বন্দেগি করবে না। পাশাপাশি আল্লাহর হক আদায়ের তাগিদের পর সৃষ্টির প্রতি দায়িত্ব পালনের জন্য বান্দাদের নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। আল্লাহ বলেন- ‘তোমরা আল্লাহ ব্যতিত আর কারো ইবাদাত-বন্দেগি করো না এবং পিতা-মাতা, আত্মীয়-স্বজন, ইয়াতিম-মিসকিনদের সাথে ভালো ব্যবহার করো ...

বাকীটুকু পড়ুন »

দাওয়াত দেয়া ও গ্রহণ করায় করণীয়

মেহমানদারি ও সম্পর্কোন্নয়নের রয়েছে দুটি মাধ্যম। একটি হচ্ছে দাওয়াতকারী তথা মেজবান, অপরটি হচ্ছে দাওয়াত গ্রহণকারী বা মেহমান। দাওয়াত গ্রহণ এবং প্রদানে রয়েছে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। পারিবারিক ও সামাজিক সম্প্রীতি রক্ষায় দাওয়াত প্রদান ও গ্রহণ অনেক জরুরি বিষয়। কারণ ইসলাম দাওয়াত গ্রহণ ও প্রদানের মতো বড় সামাজিকতাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছে। কুরআন ও হাদিসে এসব বিষয়ে অনেক তাগিদ দেয়া হয়েছে। আবার সম্পর্ক ...

বাকীটুকু পড়ুন »

দাওয়াতে দ্বীনের গুরুত্ব

দুনিয়াতে আল্লাহর পথে আহ্বানের জন্যই নবি-রাসুলদের আগমন। আর এ কারণেই একজন মুমিনের জীবনের অন্যতম মিশন হলো মানুষের প্রতি দ্বীনের দাওয়াত দেয়া। নিজেদের জীবনে কুরআন-সুন্নাহর বিধি-বিধান বাস্তবায়নের পাশাপাশি পরিবার ও পাশ্ববর্তীদেরকে আল্লাহর দ্বীনের প্রতি আহ্বান করা মুমিন বান্দার আবশ্যক কর্তব্য। এ কারণে আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমে মুমিনদের একটি বড় দায়িত্বের নির্দেশ দিচ্ছেন। তিনি বলেন, ‘ন্যায় কাজের আদেশ দেয়া এবং অন্যায় কাজ ...

বাকীটুকু পড়ুন »
Open

Close