ব্রেকিং:
Warning: mysql_query(): Unable to save result set in /home/dnn/public_html/wp-includes/wp-db.php on line 1889
Home » ইসলাম (page 5)

ইসলাম

বিয়ে প্রসঙ্গে ইসলামের বিধান

ইসলামের প্রাথমিক যুগে অমুসলমানদের সঙ্গে মুসলমানদের বিয়ে-শাদী বৈধ ছিল। মুসলমান পুরুষরা অমুসলিম নারীদেরকে বিয়ে করতো আবার মুসলিম নারীদের সঙ্গেও অমুসলিম পুরুষদের বিয়ে হতো। পরবর্তীতে আল্লাহ তাআলা যাদের সঙ্গে বিয়ে বৈধ তা কুরআনুল কারিমে সুস্পষ্টভাবে তুলে ধরে এ আয়াত নাজিল করেন- আয়াতের অনুবাদ আয়াত পরিচিতি ও নাজিলের কারণ সুরা বাকারার ২২১ নং আয়াতে আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহর সঙ্গে যাদের বিয়ে বৈধ ...

বাকীটুকু পড়ুন »

যে কাজগুলোতে আল্লাহর নামে শপথ করা নিষেধ

শপথ করতে হবে শুধুমাত্র আল্লাহ তাআলার নামে। এটাই নিয়ম। কিন্তু আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমে কিছু বিষয়ে কয়েকটি কাজে আল্লাহ তাআলার নামে শপথ করার জন্য নিষেধ করেছেন। কুরআনুল কারিমে আল্লাহ তাআলা এ বিষয়গুলো সুস্পষ্ট করে উল্লেখ করেছেন। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ তাআলা বলেন- আয়াতের অনুবাদ আয়াত পরিচিতি ও নাজিলের কারণ সুরা বাকারার ২২৪ নং আয়াতে আল্লাহ তাআলার নামে শপথ করতে নিষেধ করেছেন। ...

বাকীটুকু পড়ুন »

স্ত্রী নির্যাতন বন্ধে কুরআনের নির্দেশ

ইসলামের মূলমন্ত্রই হলো সমাজের সর্বস্তরে সুবিচার প্রতিষ্ঠা করা। তা হোক পারিবারিক জীবনে কি রাষ্ট্রীয় জীবনে। এ কারণেই ইসলামী সমাজ ব্যবস্থায় অত্যাচারীর অস্তিত্ব অসহায় আর তেমনি মজলুমের অধিকার সুপ্রতিষ্ঠিত। প্রাক ইসলামি যুগে যখন নারীদের কোনো সামাজিক মর্যাদা ছিল না। সে সময়ের এক শ্রেণির স্বামীরা তাদের স্ত্রীদের দীর্ঘ সময় ধরে বিবাহের বন্ধবে আবদ্ধ রেখেই অত্যাচার নির্যাতন চালাতো। যা ইসলাম কোনোভাবেই সমর্থন করেনি। ...

বাকীটুকু পড়ুন »

শান্তিপূর্ণ দাম্পত্য জীবনের লক্ষ্যে পুনঃবিবাহে কুরআনের বিধান

আল্লাহ তাআলা আগের আয়াতে স্ত্রীদের নির্যাতনের বিষয়ে স্বামীদের প্রতি সুস্পষ্ট বিধান ঘোষণা করেছেন। আয়াত নাজিল করে তাদের সুন্দর এবং উন্নত জীবন ব্যবস্থার দিক-নির্দেশনা ও উপদেশ প্রদান করেছেন। অতঃপর তালাক পরবর্তী সময়ে যদি কোনো স্বামী তার স্ত্রীকে তালাক দিয়ে নির্ধারিত সময়ে ফিরিয়ে না নেয়। ইদ্দত পালন করার পর যদি তারা পুনরায় বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে চায়; সে ক্ষেত্রে স্ত্রীদের অভিভাবকরা আগের ...

বাকীটুকু পড়ুন »

বনি ইসরাইলের নবি হজরত শিমবীলের সঙ্গে অনুসারীদের কথোপকথন

হজরত মুসা আলাইহিস সালামের ইন্তেকালে পর তাঁর অনুসারীরা কিছুদিন সঠিক পথের ওপর অধিষ্ঠিত ছিল। সময় অতিবাহিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাদের অধিকাংশ শিরক এবং বিদাআতে জড়িত হতে থাকে। তাদেরকে সঠিক প্রদানে আল্লাহ তাআলা বনি ইসরাইলদের মধ্যে থেকেই অনেক নবি প্রেরণ করেন। সে সব নবিদের একজন হলেন হজরত শীমবিল আলাইহিস সালাম। যিনি নবুয়ত লাভের পর বনি ইসরাইলরা তাঁদের জন্য বাদশাহ নিযুক্তসহ অনেক ...

বাকীটুকু পড়ুন »

সম্পদ নয় জ্ঞানী ও দক্ষতাসম্পন্নরাই বাদশাহ হওয়ার উপযুক্ত

বনি ইসরাইলের নবি ও রাসুল হজরত মুসা আলাইহিস সালামের ইন্তেকালে পর কিছুদিন ধরে তাঁর অনুসারীরা সঠিক পথ ও মতের ওপর জীবন-যাপন করছিল। সময় যত অতিবাহিত হচ্ছিল ততই তাদের মাঝে শিরক এবং বিদাআত প্রসার হতে থাকে। আল্লাহ তাআলা বনি ইসরাইলের বাদশা নিযুক্ত করতেন নবি-রাসুলদের মাধ্যমে। রাজা-বাদশাহরা নবি-রাসুলদের আজ্ঞাবাহ থাকতেন এবং তাদের নির্দেশ মোতাবেক বনি ইসরাইলদের সঙ্গে নিয়ে একত্ববাদের পথের ওপর কাজ ...

বাকীটুকু পড়ুন »

তাওবাকারীদের জন্য সুসংবাদ

আল্লাহ তাআলা ক্ষমাশীল। তিনি বান্দাকে ক্ষমা করতে ভালোবাসেন। এ জন্য তিনি কুরআনের অসংখ্য স্থানে বান্দাকে তাঁর নিকট গোনা থেকে পরিত্রাণ লাভে তাওবা করে ক্ষমা প্রার্থনার নির্দেশ দিয়েছেন। তাওবার নির্দেশ করে তিনি সঙ্গে সঙ্গে এ কথাও বলেছেন যে, তিনি অত্যন্ত ক্ষমা প্রিয়; বান্দা ক্ষমা চাইলে ক্ষমা করতে ভালোবাসেন। তাই সত্য গোপনকারীসহ সকল অন্যায়কারীকে ক্ষমা লাভে তাওবার নির্দেশ দিয়েছেন। তাওবাকারীদের জন্য সুসংবাদস্বরূপ ...

বাকীটুকু পড়ুন »

কুরআনে পরকালের জবাবদিহিতার বর্ণনা

কুরআনুল কারিম মানুষের পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান। এ বিধান শুধুমাত্র দুনিয়ার জন্যই প্রযোজ্য নয়; বরং দুনিয়ার জীবন-যাপনে এ বিধান পালন করে কিয়ামাতের দিন জবাবদিহিতা থেকে মুক্তি লাভের একমাত্র উপায়। আল্লাহ তাআলা কুরআনে মানুষের প্রতিটি কর্মের জবাবদিহিতার বর্ণনা উল্লেখ করেছেন। কুরআনের সে বর্ণনা পড়লে পরকালের জবাবদিহিতার চিত্র মুমিনের হৃদয়ে ভেসে ওঠে। দুনিয়ার আমল অনুযায়ী পরকালে মানুষের জবাবদিহিতার বর্ণনা কুরআনে সুস্পষ্টভাবে তুলে ধরে ...

বাকীটুকু পড়ুন »

অবিশ্বাসীদের আফসোসের কারণ

কুরআন-সুন্নাহর বিরোধিতা করে অবিশ্বাসী নেতাদের কথা মতো জীবন পরিচালনার শাস্তি হবে ভয়াবহ। কিয়ামতের দিন এ সকল পরিণতি দেখে অবিশ্বাসী নেতাদের অনুসারীরা দুনিয়ায় ফিরে আসার আকাংখা পোষণ করবে। কিন্তু পরকালে সকল অবিশ্বাসীদের অফসোস প্রকাশ এবং দুনিয়ায় ফিরে আসার আকাংখা সফল হবে না। দুনিয়াতে যারা কুরআন-সুন্নাহ বিরোধী কর্মকাণ্ডের জন্য আল্লাহ তাআলার নিকট তাওবা করে সঠিক পথে ফিরে আসবে তারাই সফলতা লাভ করবে। ...

বাকীটুকু পড়ুন »

দারিদ্র্য বিমোচন ও ইসলাম

টেকসই ভবিষ্যৎ গড়তে দারিদ্র্য ও বৈষম্য নিরসনে ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা”র স্লোগানে পালিত হচ্ছে আজ বিশ্ব দারিদ্র্য দূরীকরণ দিবস। যা ১৯৯২ সালে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে প্রস্তাবের পর ১৯৯৩ সাল থেকে প্রতিবছর ১৭ অক্টোবর বিশ্ব দারিদ্র্য দূরীকরণ দিবস হিসেবে পালন করে আসছে। জ্ঞান, বুদ্ধি ও মেধা দিয়ে সৃষ্টির সেরা করে আল্লাহ মানুষকে সৃষ্টি করেছেন। মানুষের সুখ শান্তির জন্য ধন-সম্পদে পূর্ণ করে রেখেছেন এ ...

বাকীটুকু পড়ুন »
Open

Close