ব্রেকিং:
Home » আন্তর্জাতিক » CIA-র সত্য বচন? মিথ্যা অভিযোগে সাদ্দামকে ফাঁসি!

CIA-র সত্য বচন? মিথ্যা অভিযোগে সাদ্দামকে ফাঁসি!

এক্সক্লুসিভ ডেস্ক: সাদ্দাম হুসেন ও ইরাক সম্পর্কে মারাত্মক ভুল করেছিল আমেরিকা। সম্প্রতি এমনই জানিয়েছেন সিআইএ-র প্রাক্তন বিশ্লেষক জন নিক্সন, যিনি সাদ্দামকে একদা সরাসরি জেরা করেছিলেন।

ইরাকের ক্ষমতাচ্যুত একনায়ক সাদ্দাম হুসেনকে তাঁর জন্মস্থান তিকরিতের কাছে ভূগর্ভস্থ ডেরা থেকে আটক করে মার্কিন ফৌজ। এর পরে ইরাকের অন্তর্বর্তী সরকারের উদ্যোগে বিশেষ ট্রাইবুনালে তাঁর বিচার হয়। গণহত্যা-সহ বিভিন্ন মামলায় তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করার পরে আদালতের নির্দেশে ফাঁসি দেওয়া হয়। আটক সাদ্দামকে সেই সময় লাগাতার জেরা করে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ। প্রশ্নত্তোর পর্বে সংস্থার তরফে সাদ্দামের মুখোমুখি হয়েছিলেন সিআইএ-র প্রাক্তন বিশ্লেষক জন নিক্সন। সম্প্রতি তিনি জানিয়েছেন, ইরাকের মসনদ হারানো প্রাক্তন শাসক সম্পর্কে আগাগোড়া ভুল ধারণা পোষণ করেছিল ওয়াশিংটন।

নিক্সনের দাবি, রাসায়নিক অস্ত্র মজুদ ও ব্যবহার করা নিয়ে সাদ্দাম হুসেন সম্পর্কে আমেরিকার বিশ্বাস ভিত্তিহীন ছিল। তিনি জানিয়েছেন, জেরায় সাদ্দামকে প্রশ্ন করা হয় যে, সৌদি


আরবে বহাল মার্কিন ফৌজের উপর তিনি রাসায়নিক অস্ত্র প্রয়োগ করার কথা চিন্তা করেছিলেন কি না। জবাবে ইরাকের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট জানান, ‘আমরা কখনও গণহত্যা সংগঠিত করার অস্ত্র নিয়ে আলোচনা করিনি। আলোচনায় সেই প্রসঙ্গ ওঠেনি। গোটা বিশ্বের বিরুদ্ধে রাসায়নিক অস্ত্র প্রয়োগ করা? কোনও সুস্থ স্বাভাবিক মানুষের পক্ষে এই চিন্তা করা সম্ভব? আমাদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা না হলে কী কারণে তা প্রয়োগ করার কথা ভাবব?’

উল্লেখ্য, ইরাকের হাতে রাসায়নিক অস্ত্র রয়েছে এবং তা বিশ্বের উপর প্রয়োগ করার পরিকল্পনা করা হচ্ছে, এই অভিযোগের ভিত্তিতেই ২০০৩ সালে সাদ্দামের দেশে আক্রমণ হেনেছিল আমেরিকা ও ব্রিটেন। নিক্সন জানিয়েছেন জেরায় সাদ্দাম দাবি করেন, ‘শোনার ও বোঝার অভাবেই’ এই চূড়ান্ত ভূল সিদ্ধান্ত নিয়েছিল হোয়াইটহাউস। এই প্রসঙ্গে প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের তীব্র সমালোচনবা করেছেন নিক্সন। তাঁর মতে, বুশ শুধুমাত্র সেই সমস্ত কথাই শুনতে চাইতেন যা তিনি বিশ্বাস করতে পছন্দ করতেন। এমনকি অনেক তল্লাশি করেও ইরাকের তথাকথিত অস্ত্রভাণ্ডারের হদিশ না পেয়ে বুশ যে তাই নিয়ে নানান কুরুচিকর রসিকতায় মুখর হতেন, তা জানাতেও তিনি ভোলেননি। সিআইএ-র কাঁধে যাবতীয় ব্যর্থতার দায় চাপিয়ে না কি প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট সংস্থার গোয়েন্দা রিপোর্টকে ‘অনুমান ভিত্তিক’ বলে মন্তব্য করেছিলেন।

শুধু অস্ত্রভাণ্ডার সম্পর্কে ভুলই নয়, নিক্সনের মতে ইরাক সম্পর্কে আদ্যপান্ত ভ্রান্ত ধারণার বশবর্তী হয়েছিল আমেরিকা। জেরা করার সময় তাঁকে সাদ্দাম হুসেন জানিয়েছিলেন, ‘তোমরা ব্যর্থ হবে। বুঝতে পারবে, ইরাককে শাসন করা আদৌ সহজ নয়।’

২০০৬ সালে ফাঁসিতে ঝোলানো হয় ইরাকের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হুসেনকে। কিন্তু তাঁর ভবিষ্যদ্বাণী অক্ষরে অক্ষরে ফলেছে। তাঁকে গদি থেকে সরানোর পরেই প্রবল হিংসা ও অরাজকতার শিকার হয় ইরাক, যার জেরে প্রায় ২ লক্ষ মানুষের প্রাণহানি হয়। পরিস্থিতি সামলাতে ১৩ বছর পরেও ৫০০০ মার্কিন সেনা সে দেশে মোতায়েন রাখতে হয়। একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রের তকমা কপালে সেঁটে উপসাগর কূলে আজও ধুঁকছে সাদ্দামের জন্মভূমি।-এই সময়

 

Facebook Comments
(Visited 1 times, 1 visits today)

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close