ব্রেকিং:
Home » শীর্ষ সংবাদ » কাল নাসিকে ভোট, প্রচারণা শেষে কী করছেন এখন আইভী-সাখাওয়াত?

কাল নাসিকে ভোট, প্রচারণা শেষে কী করছেন এখন আইভী-সাখাওয়াত?

শফিকুল ইসলাম, নারায়ণগঞ্জ : নায়ারণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সেখানে এখন উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। আর আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অত্যন্ত স্বাভাবিক ও সুন্দর রয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রার্থীরা। নির্বাচনি আচারণ বিধি অনুযায়ী মঙ্গলবার রাত ১২টা থেকে প্রচারণা শেষ হয়েছে। তারপরও প্রার্থীদের মাঠে ঘুরে ঘুরে ভোটারদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করছেন।

বিএনপি প্রার্থী সাখওয়াত হোসেন একা একাই শহরের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরছেন। লোকজনের সঙ্গে কুশল বিনিময় করছেন। তবে আওয়ামীল লীগ প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী মঙ্গলবার রাত ১২টার পর থেকেই শহরের দেওভোগ এলাকায় নিজ বাসভবনে অবস্থান করছেন।

পুরো সিটি করপোরেশন এলাকায় র‌্যাব, পুলিশ, আনসার, বিজিবির সদস্যরা টহল দিচ্ছে। তাদের সঙ্গে আলাপকালে তারা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি খুবই ভালো। কোথাও কোনও অপ্রিতিকর পরিস্থিতি ঘটেনি।’

বেলা ১২টার দিকে র‌্যাব-১১ এর একটি দল চাসারা এলাকায় শহীদ মিনারে ডগ স্কোয়াড দিয়ে মহড়া দিয়েছে।

শহরের বোস কেবিনের সামনে দাঁড়িয়ে বিএনপি প্রার্থী সাখওয়াত হোসেন বলেন, ‘আমার অবস্থান খুবই ভালো। কোথাও কোনও অশান্ত পরিবেশ নেই। আমরা অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ পরিবেশে এ পর্যন্ত প্রচারণা চালিয়ে এসেছি।’

সরকারি দল ও সংসদ সদস্যদের মাধ্যমে বাধাগ্রহস্থ হয়েছেন কিনা-এমন প্রশ্নেরব জবাবে তিনি বলেন, ‘অন্যের বদনাম করে কোনও লাভ নেই। স্থানীয় সংসদ সদ্যসের কাছ থেকে এখনও কোনও অসহযোগিতা পায়নি।’

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার শায়েস্তা খান রোডের ধানের শীষের প্রার্থীর মিডিয়া সেলে বসে বলেন, ‘এ মুহূর্তে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র বলতে একটিও নেই। তবে ঝুঁজিপূর্ণ হতে এক সেকেন্ড সময়ও লাগে না। পরিবেশ এখনও পর্যন্ত সুন্দর আছে। তাতে কোনও সন্দেহ নেই। ধানের শীষের জয় দৃশ্যমান। নির্বাচন সুষ্ঠু হলে ফল অবশ্যই মেনে নেব। তবে ভোট সুষ্ঠুভাবে হবে কিনা তা নির্ভর করছে প্রধানমন্ত্রীর ওপর। তিনি চাইলে সুষ্ঠুভাবে ভোট হবে।’

এ সময় ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘অন্য সময় ৪৮ ঘণ্টা আগে নির্বাচনি এলাকা বহিরাগতমুক্ত করা হলেও এবার অদৃশ্য কারণে এ সময়সীমা ৭২ ঘণ্টা  করা হয়েছে। ফলে আমাদের পরিল্পনা অনুযায়ী দলের চেয়ারপারসনের জনসভা করতে পারিনি। এ জনসভাটি অনুষ্ঠিত হলে আমাদের মাঠ আরও ভালো থাকতো।’

শহর ঘুরে দেকা গেছে র‌্যাব বিভিন্ন মোড়ে সন্দেহভাজন গাড়ি চেক করছে। পুলিশের টহল গাড়ি টহল দিচ্ছে এবং জনগণের সঙ্গে কথা বলছে।  নির্বাচনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত চার হাজার পুলিশ, দুই হাজার ছয়শ র‌্যাব, তিন হাজার আনসার, ২২ প্লাটুন বিজিবি সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবে। সিটি করপোরেশনের নির্বাচনি এলাকায় র‌্যাবের ৩১টি এবং জেলা প্রশাসনের ২৭টি ভ্রাম্যমাণ আদালত দায়িত্বে থাকবে। নাসিক নির্বাচনে মেয়র পদে ৭ জন, নয়টি মহিলা ওয়ার্ডে ৩৮ জন এবং ২৭টি ওয়ার্ডে ১৫৬ জন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। মোট ভোট কেন্দ্র ১৭৪টি। ভোটার সংখ্যা চার লাখ ৭৯ হাজার ৩৯২ জন। এর মধ্যে মহিলা ২ লাখ ৩৭ হাজার এবং পুরুষ ২ হাজার ৪১ হাজার।

বিএনপির প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে কল্যাণ পার্টির রাশেদ ফেরদৌস এবং এলডিপির কামাল প্রধান নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন।

অন্য প্রার্থীরা হলেন- বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পাটির প্রার্থী মাহবুবুর রহমান ইসমাইল কুড়াল প্রাতীক, ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মুফতি মাসুম বিল্লাহ হাতপাখা প্রতীক এবং ইসলামী ঐক্য জোটের প্রার্থী মুফতী এজহারুল হক মিনার প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। -বাংলা ট্রিবিউন।

 

Facebook Comments
(Visited 1 times, 1 visits today)

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close