Home » খেলা » নিউজলেন্ডের রানের পাহাড়ের রেকর্ড ৩৪১ : বড় পরাজয়ের আশঙ্কা টাইগারদের

নিউজলেন্ডের রানের পাহাড়ের রেকর্ড ৩৪১ : বড় পরাজয়ের আশঙ্কা টাইগারদের

আগে হোক পরে হোক টাইগারদের সর্বোচ্চ রান ৩২৯।    বলা যায় ৩৪২ রান চেস করতে হলে অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে জিততে হবে।  টাইগার শিবিরের এখন আশঙ্কা পরাজয়ের ব্যবধান কত কমানো যায়।

টম ল্যাথামের সেঞ্চুরি ও কলিন মানরোর হাফ সেঞ্চুরিতে টাইগারদের বিশাল টার্গেট দিয়েছে নিউজিল্যান্ড। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেটের বিনিময়ে কিউইদের সংগ্রহ ৩৪১ রান। জিততে হলে বাংলাদেশকে করতে হবে ৩৪৮ রান।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ওয়ানডে সিরিজের আজ প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে টসে হেরে ফিল্ডিংয়ে নামে মাশরাফি বাহিনী। ক্রাইস্টচার্চে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামস ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন।

ফিল্ডিংয়ে যেয়ে মুস্তাফিজের বলে প্রথম উইকেটের পতন হয় নিউজিল্যান্ডের। ৫.১ ওভারে দলীয় ৩১ রানের মাথায় বাংলাদেশের কাটার মাস্টারের বলে আউট হন মার্টিন গাপটিল। সহজ ক্যাচটি ধরেন সৌম্য সরকার। ব্যক্তিগত ১৫ রানেই ফিরে যান নিউজিল্যান্ডের এই ওপেনার। তাসকিনের বলে ফেরে দ্বিতীয় উইকেট। দলীয় ৭৯ রানে নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন মুশফিকুর রহিমের কাছে ক্যাচ দিয়ে ফিরে গেছেন। ১৪.২ ওভারে ব্যক্তিগত ৩১ রানে আউট হন এই কিউই অধিনায়ক।

এরপরই সাকিবের জোড়া আঘাত। ব্যক্তিগত ১৭ রানের মাথায় সাকিবের বলে লং অনে নীল ব্রুমের সহজ ক্যাচ ফেলে দেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তবে দলীয় ১৩৪ রানে সেই সাকিবের বলেই আউট হন ব্রুম। ২৪.৩ ওভারে সাকিবের এলবি’র আবেদনে সাথে সাথে সাড়া দেন আম্পায়ার। ব্যক্তিগত ২২ রানে ফিরে যান এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। এরপর ২৮.৪ ওভারে সাকিবের আরো একটি আবদনে সাড়া দেন আম্পায়ার। ১৫৮ রানে জেমস নিশাম আউট হলে চতুর্থ উইকেটের পতন হয় নিউজিল্যান্ডের।

বাংলাদেশের বিপক্ষে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের হয়ে সেঞ্চুরি তুলে নেন কিউইদের ওপেনার ব্যাটসম্যান টম ল্যাথাম। এটি তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারে দ্বিতীয় শতক। ১২১ বল মোকাবেলায় ৭টি চার ও ৪টি ছয়ে ১৩৭ রানে আউট হন এই বাহাতি ব্যাটসম্যান। দলীয় ৩২৩ রানে ষষ্ঠ উইকেট হিসেবে বিস্ময় বালক মুস্তাফিজ ফেরান এই সেঞ্চুরিয়ানকে।

ল্যাথামের আউট হওয়ার আগেই সাকিবের বলে ফিরে যান আরেক বাহাতি ব্যাটসম্যান কলিন মানরো। তবে ফিরে যাওয়ার আগে তিনি নামের পাশে যোগ করেছেন একটি অর্ধশতক। এটি তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারের তৃতীয় অর্ধশতক। মাত্র ৬১ বল মোকাবেলায় ৮টি চার ও ৪টি ছয়ে ৮৭ রানের দুর্দান্ত একটি ইনিংস খেলেন মানরো।

৪৮.২ ওভারে দলীয় ৩২৭ রানে তাসকিন বোল্ড করেন লুক রনকিকে। মিচেল স্যান্টনার ৮ রানে ও টিম সাউদি ৭ রানে ছিলেন অপরাজিত।

বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট নেন সাকিব আল হাসান। দুটি করে উইকেট নেন মুস্তাফিজ ও তাসকিন।

Facebook Comments
(Visited 1 times, 1 visits today)

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close