Home » মতামত » আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও তাদের স্বাধীনতা

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও তাদের স্বাধীনতা

বাংলাদেশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গুরুত্ব অনেক। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধেও তাদের অনবদ্য অবদান অনস্বীকার্য। তেমনি বর্তমানেও দেশের বিভিন্ন পরিস্থিতি মোকাবেলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর কথা না বললেই নয়। তারা জনগণের বন্ধু। বাংলাদেশের মত রাজনৈতিক সংঘাতের দেশে পুলিশের ভূমিকা অসীম। কিন্তু তাদের নিরপেক্ষ ভাবে কাজ করার স্বাধীনতা কতটুকু? আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যে স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে না তার নতুন ভাবে প্রমাণ মিললো গাইবান্ধায় সাংসদ মনজুরুল ইসলাম হত্যাকাণ্ড থেকে। গাইবান্ধা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল ফারুক সাংসদ মনজুরুল ইসলাম হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে একটি জাতীয় দৈনিকে বলেছেন, “এখানে জামায়াত এখানে অনেক ঘটনা ঘটিয়েছে। তাই মূল সন্দেহ জামায়াতের দিকেই”। অন্যদিকে সাংসদ হত্যার তদন্তে যুক্ত পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের এক কর্মকর্তাও একটি জাতীয় দৈনিককে বলেছেন, “সাংসদের পরিবারের সদস্য ও আত্মীয়দের দেওয়া তথ্য সন্দেহের মধ্যে রয়েছে। তবে সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে জামায়াতকে দায়ী করা হচ্ছে, তাই তারা তদন্তে বাড়তি চাপ অনুভব করছেন। সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে কোন ঘটনার প্রেক্ষিতে যখন কোন মহলকে দায়ী করা হবে, তখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাধ্য কি এর বাইরে যাওয়া। সাংসদ হত্যাকে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগের কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত সবাই জামায়াতকে দায়ী করছে। এটা মূলত সন্দেহের অবকাশ মাত্র।

হত্যাকাণ্ড জামায়াতই ঘটিয়ে থাকুক বা অন্য কোন চক্রই হোক না কেন তার তদন্ত করার আগ পর্যন্ত কোন বক্তব্য অপরাধ নয় কি? আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সুষ্ঠু তদন্ত শেষে যে তথ্য পাওয়া যাবে সেটিই মূল। কিন্তু তাদের সেই সুযোগটুকু থাকছে কি? তাদের সরকার বা উচ্চ পর্যায় থেকে প্রাপ্ত বক্তব্যের পেছনে দৌড়াতে হচ্ছে। তদন্তের একটি সীমাবদ্ধতা তৈরি করে দেওয়া হচ্ছে। শুধু সাংসদ হত্যা নয় এর আগের অনেক সহিংস ঘটনাগুলোতে এমন পরিস্থিতে পড়তে হয়েছে পুলিশকে। বিশ্বজিৎ হত্যাকাণ্ডে সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে শিবিরকে দায়ী করা হলেও তা ছাত্রলীগ জড়িত বলে তদন্ত থেকে পাওয়া যায়। ব্লগার রাজিব হত্যা, প্রকাশক ফয়সাল আরেফিন দীপন হত্যা, এসপি বাবুলের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যার তদন্তে পুলিশকে এমন বিড়ম্বনায় পড়তে হয়েছে। পুলিশ মানুষের বন্ধুরুপে কাজ করে। দেশের পরিস্থিতি মোকাবেলার দায়িত্ব শুধু তাদেরই। সরকার থেকে পুলিশের কাজের তদারকি করার কাজটুকু করতে পারে। সুতরাং তদন্তের আগে কোন বক্তব্য না দেওয়াই শ্রেয়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে স্বাধীন ও নিরপেক্ষ ভাবে কাজ করার সুযোগ দিলে দেশের সকল পরিস্থিতির সুষ্ঠু মোকাবেলা করতে পারবে। এটা দেশের সকলের প্রত্যাশা। লেখকঃ কায়েস মাহমুদ

Facebook Comments
(Visited 1 times, 1 visits today)

মন্তব্য

আপনার ইমেইল গোপন থাকবে - আপনার নাম এবং ইমেইল দিয়ে মন্তব্য করুন, মন্তব্যের জন্য ওয়েবসাইট আবশ্যক নয়

*

Open

Close